ফ্যাশন ডিজাইন কি? কিভাবে একজন ডিজাইনার হবেন?

বর্তমানে বাংলাদেশে ফ্যাশন ডিজাইন (Fashion design)-খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। একজন ভালো মানের ফ্যাশন ডিজাইনার হতে পারলে আপনি ক্যারিয়ার ডেভেলপ করতে পারবেন। ডিজাইনিং একটি ভালো পেশা আর এই ডিজাইন শেখার জন্য সঠিক গাইডলাইন জানা থাকতে হবে। অনেকে টেক্সটাইল ও ফেব্রিক্স নিয়ে কাজ করার পরিকল্পনা করে থাকে।

কারণ বাংলাদেশে গার্মেন্টস শিল্পগুলোতে ফ্যাশন ডিজাইনারদের বেশ চাহিদা রয়েছে। এছাড়া বড় বড় মার্কেটে ফ্যাশন ডিজাইনার খুঁজে থাকে। চলুন ফ্যাশন ডিজাইন সম্পর্কে আমরা আরো কিছু তথ্য জেনে নেই।

ভালো মানের একজন ফ্যাশন ডিজাইনার হওয়ার জন্য পড়াশোনার পাশাপাশি বিভিন্ন ডিজাইন নিয়ে চিন্তা-ভাবনা বা রিসার্চ করতে হয়। আপনি যত ডিজাইন দেখবেন আপনার মাথায় তত বেশি ডিজাইন সম্পর্কে ধারণা চলে আসবে। তাই আজকে আমরা জানব ফ্যাশন ডিজাইন কি? কিভাবে একজন ভালো ফ্যাশন ডিজাইনার হওয়া যায়?

ফ্যাশন ডিজাইন কি (What is fashion design)?

ফ্যাশন-ডিজাইন-কি

সহজ ভাষায় ফ্যাশন ডিজাইন হলো একটা আর্ট বা শিল্প। সৃজনশীল মেধাশক্তি প্রয়োগ করে কোনো জামাকাপড় বা অ্যাক্সোসোরিজের উপর বিভিন্ন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ডিজাইন করাই হলো ফ্যাশন ডিজাইন। কোনো পোষাকের কালার, সাইজ, প্রাকৃতিক সৌন্দর্জ ও আকর্ষনীয় করা ইত্যাদি হলো একজন ফ্যাশন ডিজাইনারের কাজ।

ফ্যাশন ডিজাইনার কাকে বলে?

সাধারণত যে বা যারা জামাকাপড়, হাত ব্যাগ, জুতা ইত্যাদি নিজের মেধাশক্তি দিয়ে ইউনিক ডিজাইন (Unique design)-করে থাকে তাকে ফ্যাশন ডিজাইন বলে। ফ্যাশন ডিজাইনাররা বিভিন্ন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নতুন চিন্তা ভাবনা করে জামাকাপড় ও হাত ব্যাগ ইত্যাদি তৈরি করে থাকে।

ফ্যাশন-ডিজাইন-কাকে-বলে

আরেকটু বুঝিয়ে বলি, আপনি কী কখনো নিজের জন্য জামা-কাপড় বা হাত ব্যাগ ইত্যাদি তৈরি করেছেন? কিংবা কখনো কি ভেবে দেখেছেন কীভাবে এইসব জিনিস তৈরি করা হয়? এখন আপনি বলতে পারেন এইসব কাজ তো আমার নয়, আমার কাজ হলো পরিধান করা। আপনি কিন্তু একদম ঠিক বলেছেন, এটা আপনার কাজ নয়। মূলত এই কাজগুলোই যারা করে তারাই হলো ফ্যাশন ডিজাইনার।

কিভাবে ফ্যাশন ডিজাইন শিখবেন (How to learn fashion design?)?

ফ্যাশন ডিজাইন একটি সৃজনশীল পেশা। স্কুল-কলেজ থেকেই ডিজাইনিং শেয়ার প্রতি আগ্রহ থাকতে হবে। বিভিন্ন ডিজাইন ফলো করা নিজের মেধা কাজে লাগিয়ে নতুন কোনো ডিজাইন তৈরি করার চেষ্টা করা ইত্যাদি ফ্যাশন ডিজাইন শেখার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

ফ্যাশন ডিজাইনে কালার ও শেপ (Color and shape)-এর অনেক কাজ রয়েছে যেগুলো প্রতিটা ডিজাইনারের শিখতে হবে। বিভিন্ন কালার বা শেপ মনে রাখার জন্য আপনার বেশি চর্চা করতে হবে।

how-to-learn-fashion-design

আপনার দৃষ্টিশক্তি যত ভালো কাজ করবে আপনি তত ভালো কালার নির্বাচন করতে পারবেন। নতুন আইডিয়া বেড় করে নিজেই ডিজাইন করার চেষ্টা করবেন। যদি কোনো আইডিয়া (Idea)-মাথায় না আসে তাহলে অনলাইনে গুগলে ডিজাইন সম্পর্কে রিসার্চ করতে থাকুন। শুরু থেকেই আপনি যদি ডিজাইন সম্পর্কে অনেক বেশি রিসার্চ করতে পারেন তাহলে একজন ভালো ফ্যাশন ডিজাইনার হতে পারবেন।

আরো পড়ুন-

বাংলাদেশ অনেক প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি রয়েছে যেখানে ফ্যাশন ডিজাইন কোর্স করা হয়। যেমন- বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অফ টেক্সটাইল, ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অফ ফ্যাশন টেকনোলজি ও বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি অফ ফ্যাশন অ্যান্ড টেকনোলোজি (BUFT)-ইত্যাদি। আপনি যেকোনো একটি ভার্সিটিতে ভর্তি হয়ে ফ্যাশন ডিজাইন শিক্ষা অর্জন করতে পারেন।

মনে রাখবেন ফ্যাশন ডিজাইনার হতে হলে পড়াশোনার পাশাপাশি আঁকা-আঁকির অভ্যাস তৈরি করতে হবে। কারণ ফ্যাশন ডিজাইন একধরনের শিল্প যেটা বই মুখস্ত করে ডিজাইনার হওয়া যায় না।

ফ্যাশন-ডিজাইনার-হতে-চাই

ভালো আর্ট করতে পারলে আপনি দ্রুত একজন সফল ফ্যাশন ডিজাইনার হতে পারবেন। আর্ট করার মাধ্যমে আপনার সৃজনশীলতা বৃদ্ধি পাবে। অন্যদিকে ফ্যাশন ডিজাইনের প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠতে পারবেন।

এছাড়া অনলাইনে বিভিন্ন ম্যাগাজিন (Magazine)-পাওয়া যায় যেগুলো নিয়মিত ফলো করার মাধ্যমে ডিজাইনিং সম্পর্কে ধারণা নিতে পারবেন। শুধু তাই নয় আপনার যদি কম্পিউটার বা ল্যাপটপ থাকে তাহলে অনলাইন থেকে ভিজ্যুয়াল ডিজাইন সফটওয়্যারগুলোর মাধ্যমে ফ্যাশন ডিজাইন শিখতে পারেন।

কয়েকটি ফ্যাশন ডিজাইন সফটওয়্যার যেমন- Valentina Fashion Design Software, Tailornova Fashion Design SoftwareBrowzwear Fashion Design Software, SnapFashun Fashion Design Software-ইত্যাদি।

অনলাইনে কিভাবে ফ্যাশন ডিজাইনিং কোর্স করবেন?

অনেকেই ক্যারিয়ার গড়ার জন্য সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারে না। ফলে যেকোনো একটি সাবজেক্ট নিয়ে পড়াশোনা করতে থাকে। কিন্তু একসময় তার চিন্তা ভাবনা পাল্টে যায় সে অন্যকোনো বিষয়র উপর দক্ষতা অর্জন করতে চায়। আপনিও যদি ডিজাইনিং লাইনে পড়াশোনা না করে থাকেন তাহলে বিভিন্ন কোর্সের মাধ্যমে ডিজাইনিং শিখে নিতে পারেন।

ফ্যাশন-ডিজাইনিং-কোর্স

ফ্যাশন ডিজাইন নিয়ে পড়াশোনা শেষ করেলও বেশিরভাগ শিক্ষার্থীদের একটি কোর্স সম্পন্ন করতে হয়। এর ফলে চাকরি পাওয়ার সুযোগ-সুবিধা বেড়ে যায় এবং উচ্চ লেভেলের একজন ফ্যাশন ডিজাইনার হওয়া যায়। শুধু অনলাইনের মাধ্যমে ফ্যাশন ডিজাইনিং কোর্স করতে হবে বিষয়টি ঠিক তা নয়। আপনি যেকোনো ভাবে ফ্যাশন ডিজাইনিং কোর্স সম্পন্ন করতে পারেন।

বাস্তব অভিজ্ঞতা অর্জন করুন

আপনারা সবাই জানেন ডিজাইন একটি সৃজনশীল পেশা। ডিজাইনের ক্ষেত্রে শুধু আইডিয়া তৈরি করতে হয়। বেশিরভাগ সময় গভেষনা করতে হয় বিভিন্ন ডিজাইন নিয়ে। শুধু ডিজাইনিং লাইনে পড়াশোনা করে একজন ডিজাইনার হওয়া যায় না। পড়াশোনার পাশাপাশি ডিজাইন সম্পর্কে বাস্তব অভিজ্ঞতা অর্জন করতে হবে।

ডিজাইনিং-শিখে-চাকরি

আপনি ডিজাইন নিয়ে ডিগ্রি অর্জন করলেই একজন ভালো মানের ডিজাইনার হতে পারবেন না। তাই আগে থেকেই পড়াশোনার পাশাপাশি পার্ট টাইম জব শুরু করুন বিভিন্ন বায়িং হাউজে বা ম্যানুফ্যাকচারিং হাউজে। আপনি যদি পার্ট টাইম চাকরি করতে না পারেন তাহলে ডিগ্রি অর্জন করার পর একটি ডিজাইন ফার্মে কোচিং করে ফেলুন। তাহলেই আপনার চাহিদা ও বাস্তব অভিজ্ঞতা বৃদ্ধি পাবে।

বর্তমানে অনেক কোম্পানি রয়েছে যারা কোনো অভিজ্ঞতা ছাড়া ব্যাক্তিকে কোম্পানিতে জয়েন করায় না। অনেকেই আছে মাস্টার্স বা ডিগ্রি অর্জন করে চাকরির খুঁজে বেড় হয়। কিন্তু বেশিরভাগ মানুষেরই চাকরিটা হয় না। কারণ তাঁরা পার্ট টাইম জর বা কোনো কোর্স করে অভিজ্ঞতা অর্জন করেনি। ফলে চাকরি হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।

ফ্যাশন ডিজাইনারদের ফলো করুন

আপনি যেহেতু একজন ফ্যাশন ডিজাইনার হবেন তাই আপনার উচিৎ বড় বড় ফ্যাশন ডিজাইনারদের সাথে যোগাযোগ রাখা ও তাদেরকে ফলো করা। কারণ একজন ফ্যাশন ডিজাইনার বিভিন্ন অভিজ্ঞতার সাথে কাজ করে থাকে। তাই আপনি ফ্যাশন ডিজাইনারদের ফলো করে তাদের মতো করে অভিজ্ঞতা অর্জন করুন ও কাজ করুন।

ways-to-learn-fashion-design

এছাড়া আপনার ভার্সিটির বন্ধুদের সাথে যোগাযোগ রাখবেন। কারণ তারাও আপনার মতো ফ্যাশন ডিজাইনিং নিয়ে পড়াশোনা করছে। তাদের সাথে আপনার ফ্যাশন ডিজাইন আইডিয়া (Fashion design ideas)-শেয়ার করুন এবং তাদের মতামত জেনে নিন। তারাও যদি কোনো ডিজাইন আপনার সামনে হাজির হয় তাহলে সেটার সম্পর্কে আপনিও কিছু বলুন।

শুরুর দিকে আপনার ডিজাইনগুলো ভালো হবে এটা কিন্তু কোনো বিষয় না। সবাই শুরুতেই ভালো ডিজাইন করে না। ভুল করে করে এক সময় ভালো আইডিয়া চলে আসে। আপনি যত চেষ্টা করবেন তত শিখতে পারবেন, ভুল হলেও কোনো সমস্যা নেই। নতুন নতুন ডিজাইনগুলো ফলো করে নিজেও সেগুলো করার চেষ্টা করবেন। তাহলে আপডেট ডিজাইন সম্পর্কে ধারণা পাবেন।

ফ্যাশন ডিজাইনারদের ভবিষ্যৎ কি (What is the future of fashion designers?)?

আপনি যদি পেশা হিসেবে Fashion design-বেঁছে নেন তাহলে আপনার চাকরির কোনো অভাব হবে না। বাংলাদেশে গার্মেন্টস শিল্পগুলো ফ্যাশন ডিজাইনারদের খুব প্রাধান্য দিয়ে থাকে। শুধু তাই নয় বায়িং হাউজ, বুটিক হাউজ ও টেক্সটাইল শিল্প ইত্যাদি ক্ষেত্রে আপনার চাকরির কোনো অভাব হবে না। এছাড়া দেশ-বিদেশে ফ্যাশন ডিজাইনারদের অনেক চাহিদা রয়েছে।

টাকা-ইনকাম

পারিশ্রমিক হিসেব করতে গেলে বাংলাদেশের তুলনায় বিদেশে আপনি বেশি বেতনে কাজ করতে পারবেন। তবে বাংলাদেশেও কম দেওয়া হয় না। শুরুর দিকে আপনার বেতন কিছুটা কম হলেও আপনার কাজের গতি দেখে কোম্পানি বেতন বাড়াবে। সর্বনিন্ম বেতন হিসেব করতে গেলে ১৫-২০ হাজার টাকা পর্যন্ত। কিন্তু আপনার অভিজ্ঞতা বৃদ্ধির সাথে সাথে বেতন হয়ে যেতে পারে ১,০০,০০০ থেকে ২,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত।

বাংলাদেশে বা অন্যকোনো দেশে যদি আপনি একটি কোম্পানিতে ফ্যাশন ডিজাইনার হিসেবে জয়েন করে থাকেন তাহলে আপনি বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা পাবেন। বিভিন্ন দেশে ভ্রমণ করা, কাজের স্বাধীনতা ও ভ্রমনে যেয়ে নতুন সংস্কৃতি সম্পর্কে জানা ইত্যাদি। এছাড়া যেকোনো কোম্পানি ফ্যাশন ডিজাইনারদের উপর কাজের চাপ কম দেয়। কারণ ফ্যাশন ডিজাইনারদের মাথা ঠান্ডা রেখে কাজ করতে হয়।

উপসংহার

ফ্যাশন ডিজাইন নিয়ে পড়াশোনা করলে আপনার চাকরি বা ভবিষ্যৎ নিয়ে কোনো চিন্তা করতে হবে না। ফ্যাশন ডিজাইন সবার কাছে খুব পছন্দের একটি পেশা যেটার চাহিদা দিন দিন বাড়তে থাকবে। মানুষ যত আপডেট হচ্ছে উন্নত মানের প্রযুক্তি ব্যবহার করছে। তার সাথে জামাকাপড় ইত্যাদি সবই আপডেট চায় মানুষ। তাই ফ্যাশন মানুষের কাছে আরো আকর্ষনীয় হয়ে উঠতে পারে। আপনার কাছে ফ্যাশন ডিজাইন কেমন মনে হয় নিচে কমেন্ট করে জানান।

আপনার কাছে পোষ্ট টি কেমন লেগেছে সংক্ষেপে কমেন্টেস করে জানাবেন ৷ T=(Thanks) V= (Very good) E= (Excellent) আপনাদের কমেন্ট দেখলে আরো ভালো ভালো পোষ্ট দিতে উৎসাহ পাই।

About SM Simol

আমি সিমুল, বিশ্ববিদ্যালয় পড়াশোনা করি ও এর পাশাপাশি আমি একজন আর্টিকেল রাইটার। বিভিন্ন বিষয় নিয়ে এই সাইটে ব্লগ পোস্ট পাবলিশ করি ও "BanglaAdvice.Com"-সাইটের (এডমিন) আমি। আমার সৃজনশীল মেধাশক্তিকে কাজ লাগিয়ে আর্টিকেল তৈরি করে থাকি এবং বিভিন্ন সাইট এর আলোচিত খবর গুলো প্রকাশ করে থাকি ।

Check Also

এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয় করার উপায়

এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয় করবেন কিভাবে? [ অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি ]

অনলাইনে মার্কেটিং করার জন্য ডিজিটাল মার্কেটিং এর অন্তর্ভুক্ত এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate Marketing)-অনেক জনপ্রিয়। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *