Saturday , 19 September, 2020
গ্রাফিক্স-ডিজাইন

গ্রাফিক্স ডিজাইন কি? কিভাবে শিখবেন? [ নতুনদের জন্য গাইডলাইন ]

গ্রাফিক্স ডিজাইন খুবই মজার একটি কাজ। কোনো কিছু উপর আর্ট বা নকশা করা ইত্যাদিকে গ্রাফিক্স ডিজাইন বলা হয়ে থাকে। মানুষ কল্পনাকে সদৃশ করার জন্য গ্রাফিক্স করে থাকে। গ্রাফিক্স ডিজাইন কি? কিভাবে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখবেন? এছাড়া গ্রাফিক্সের আরো বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আজকে আলোচনা করব। আপনি যেকোনো ভাবে গ্রাফিক্স করতে পারেন যেমন- খাতা কলমের মাধ্যমে, রংপেন্সিলের মাধ্যে এবং সফটওয়্যার এর মাধ্যমে ইত্যাদি।

বর্তমানে গ্রাফিক্স ডিজাইনের অনেক চাহিদা রয়েছে। অনলাইনে বা অফলাইনে গ্রাফিক্স এর কাজ করে মানুষ লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করছে। চলুন আমরা গ্রাফিক্স ডিজাইন সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেই।

গ্রাফিক্স ডিজাইন কি (What is graphics design)?

সাধারণত গ্রাফিক্স ডিজাইনকে দুই ভাগে বিভক্ত করা যায় যেমন গ্রাফিক্স ও ডিজাইন। গ্রাফিক্স কি (What is graphics)? গ্রাফিক্স হলো দৃশ্যমান বিষয় বস্তু যেটা আর্ট, কল্পনা বা প্রকাশ দ্বারা গঠিত হয়। যখন কোনো কাল্পনিক আর্টকে বিভিন্ন ভাবে প্রকাশ করা হয় তখন প্রকাশিত শিল্পটিকে গ্রাফিক্স বলা হয় যেমন- লাইন, সাপে, টেক্সচার, ফর্ম, টাইফোগ্রাফি ইত্যাদি।

গ্রাফিক্স-ডিজাইন-কি

এখন আসি ডিজাইন কি (What is design)? ডিজাইন হলো চিন্তা ও বাস্তবতার সমন্বয় গঠিত যেটা কোনো কিছু সৃষ্টি করার পূর্বে তাঁর কার্যবলী, চেহারা, আকার-আকৃতি, দেখতে কেমন হবে ইত্যাদি ঠিক করাকে বোঝায়। ডিজাইন করে মানুষ সবচেয়ে বেশি আনন্দ পায়। ভালো ডিজাইনারদের বর্তমানে প্রচুর চাহিদা রয়েছে।

কিভাবে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখবেন (How to learn graphics design)?

গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখার জন্য অনেক ধরণের উপায় রয়েছে। বর্তমানে ঘরে বসে ইন্টারনেটের মাধ্যমে গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখা যায়। গ্রাফিক্স ডিজাইনের জন্য বিভিন্ন রকম সফটওয়্যার (Software)-ব্যবহার করা হয়ে থাকে। সুন্দর ভাবে আর্ট বা নকশা করার জন্য কম্পিউটারে বিভিন্ন ধরণের সফটওয়্যার রয়েছে। আপনার চিন্তা শক্তিকে বাস্তবে রূপান্তর করার জন্য গ্রাফিক্স ডিজাইন করতে পারেন।

বিভিন্ন আইটি সেন্টার

বাংলাদেশে বর্তমানে অনেক আইটি সেন্টার রয়েছে যেখানে সহজেই গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখানো হয়ে থাকে। আপনি চাইলে তাদের কাছ থেকে ঘরে বসে ডিভিডি ক্রয় করে ভিডিও দেখে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে পারেন। এছাড়া তাঁরা আরো বিভিন্ন সুযোগ দিয়েছে গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের জন্য।

আপনি চাইলে আইটি সেন্টারগুলোতে অনলাইনের মাধ্যমে কোর্স করতে পারেন। বিভিন্ন সময় বাংলাদেশের আইটি সেন্টারগুলো ফ্রি প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে। আপনি চাইলে সেই সময় তাদের সাথে যোগাযোগ করে ফ্রি কোর্স করতে পারবেন।

প্রশিক্ষণমূলক ওয়েবসাইট

অনলাইনে বিভিন্ন ওয়েবসাইট রয়েছে যেখানে গ্রাফিক্সের কাজ শেখানো হয়। আপনি যদি ইংলিশ ভালো জানেন তাহলে অনলাইনে বিভিন্ন বিদেশি ওয়েবসাইট রয়েছে যারা বড় বড় গ্রাফিক্স ডিজাইনার এবং তাঁরা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে গ্রাফিক্সের কাজ শিখিয়ে থাকে। এছাড়া আপনি তাদের কাছ থেকে ডিভিডি ক্রয় করে নিতে পারবেন।

গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখার কয়েকটি ওয়েবসাইট যেমন- skillshare.com, lynda.com, udemy.com-ইত্যাদি। গ্রাফিক্স ডিজাইন ছাড়াও এই সাইটগুলো থেকে আরো বিভিন্ন প্রশিক্ষণ নিতে পারবেন। বর্তমানে এভাবেই মানুষ ঘরে বসে গ্রাফিক্সের কাজ শিখে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করছে।

ইউটিউব টিউটোরিয়াল

ইউটিউবে শুধু ভিডিও গান বা কার্টুন পাওয়া যায় না বরং বিভিন্ন ধরণের শিক্ষামূলক ভিডিও পাওয়া যায়। ইউটিউবে এখন গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন ও ভিডিও গ্রাফিক্স ডিজাইন ইত্যাদি পাওয়া যায়। আর এই ভিডিওগুলো দেখে ফ্রি গ্রাফিক্স ডিজাইন (Graphics design)-শিখতে পারবেন। প্রতিদিন কিছু ভিডিও দেখবেন এবং একটু একটু করে কাজ শিখতে থাকবেন।

গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখার জন্য আপনার সময় দিতে হবে। খুব ঠান্ডা মাথায় ও মনোযোগ দিয়ে গ্রাফিক্সের কাজ শিখতে হয়। আর সব সময় প্র্যাকটিসের মধ্যে থাকবেন। কারণ কিছু দিন আপনি গ্রাফিক্স কাজ না করলে ভুলে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে। সুতরাং আপনি ইউটিউবের মাধ্যমে খুব সহজেই ঘরে বসে গ্রাফিক্সের কাজ শিখে নিতে পারেন।

কেন গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখবেন (Why learn graphics design)?

বর্তমানে সবচেয়ে জনপ্রিয় ও সহজ কাজ হচ্ছে গ্রাফিক্স ডিজাইন। আপনি যদি অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসগুলো ভিজিট করেন তাহলে দেখতে পারবেন গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের কতটা চাহিদা রয়েছে।

how-to-earn-money-by-graphics-design

গ্রাফিক্সের কাজ করে আপনি ঘরে বসেই মাসে কয়েক লক্ষ টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন। এছাড়া গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের অফলাইনেও ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। বিভিন্ন কোম্পানি গ্রাইফিক্স ডিজাইনারদের হায়ার করে থাকে।

বাংলাদেশেও গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের জন্য চাকরির সার্কুলার পাওয়া যায়। অন্যান্য যেমন ওয়েব ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, প্রোগ্রামিং ভাষা ও অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট ইত্যাদি কাজের চেয়ে গ্রাফিক্সের কাজ অনেক সহজ।

এছাড়া গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে সময় কম লাগে। আপনি ডিজাইন শিখলে আপনি ফ্রিল্যান্সিং (Freelancing)-করে অল্প সময়ের সফলতা আনতে পারবেন। তবে আপনাকে ভালো ভাবে গ্রাফিক্সের কাজ শিখতে হবে।

ভালো ডিজাইন না পারলে আপনি ফ্রিল্যান্সিং করে আয় করতে পারবেন না। আপনি যদি একজন নতুন ফ্রিল্যান্সার হতে চান তাহলে গ্রাফিক্সের কাজ শিখতে পারেন কারণ নতুনদের জন্য এটাই সবচেয়ে বেস্ট।

গ্রাফিক্সের কাজগুলো কি কি (What are the functions of the graphics)?

বিভিন্ন ধরণের গ্রাফিক্স কাজ রয়েছে শুধু ফটো এডিট করা বা বিজনেস কার্ড তৈরি করাই গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজ নয়। বরং কোনো কাজ চিন্তা ভাবনা করে বা কল্পনাগুলো বাস্তবে রূপান্তর করাই হলো গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজ।

যেমন- টাইফোগ্রাফি, টেক্সচার, লোগো ডিজাইন, ফটো এডিট, বইয়ের কাভার তৈরি, ব্যানার ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, পোস্টার তৈরি, টি-শার্ট ডিজাইন, ভিডিও গ্রাফিক্স, এনিমেশন ভিডিও তৈরি ইত্যাদি। এই সবগুলোই হলো গ্রাফিক্স ডিজাইনের অন্তর্ভুক্ত।

আর এই কাজগুলো গ্রাফিক্স ডিজাইনের মধ্যে সবচেয়ে বেশি হয়ে থাকে। ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটগুলোতেও এই কাজগুলোর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। আপনি চাইলে এই কাজগুলো উপর বেশি বেশি প্র্যাকটিস করে দক্ষতা অর্জন করতে পারেন।

গ্রাফিক্স ডিজাইনের সফটওয়্যারগুলো কি কি (What are the software of graphics design)?

কম্পিউটার বা মোবাইলের জন্য বিভিন্ন রকম সফটওয়্যার (Software)-পাওয়া যায় গ্রফিক্স ডিজাইনের জন্য। কিন্তু কম্পিউটারের বেশিরভাগ সফটওয়্যারগুলো প্রিমিয়াম হয়ে থাকে।

আপনি চাইলে টাকা দিয়ে ক্রয় করে নিতে পারেন অথবা ইন্টারনেট থেকে ডাউনলোড করতে পারেন। গ্রাফিক্স ডিজাইনের জন্য সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হচ্ছে কম্পিউটার। কম্পিউটারের মধ্যে গ্রাফিক্সের কাজ করে সবচেয়ে বেশি মজা পাবেন।

কিন্তু শুধু সফটওয়্যার ইন্সটল করে রাখলেই চলবে না সেগুলোর ব্যবহার সম্পর্কে জানতে হবে। কতগুলো গ্রাফিক্স ডিজাইনের সফটওয়্যার হলো- Adobe Photoshop, Adobe Illustrator, Adobe InDesign, Sketch, Affinity Designer, CorelDraw Graphics Suite-এছাড়া আরো অনেক সফটওয়্যার রয়েছে। আমি কয়েকটি সফটওয়ার সম্পর্কে আপনাকে জানাইয়ে দিচ্ছি।

Adobe Photoshop

এডোবি ফটোশপ দিয়ে মূলত ছবি এডিট করা হয়। এছাড়া যারা ওয়েব ডিজাইনের কাজ করে তারাও এডোবি ফটোশপ ব্যবহার করে থাকে। কম্পিউটারের মধ্যমে যেকোনো ছবি এডিট করার জন্য এডোবি ফটোশপ সবচেয়ে জনপ্রিয়।

কোনো ছবির ব্যাগ্রাউন্ড চেঞ্জ করা থেকে শুরু করে বিভিন্ন কালার করা ও নানা রকম ইফেক্ট দেওয়ার জন্য এডোবি ফটোশপ অন্যতম। এডোবি ফটোশপ ব্যবহার করার জন্য সবচেয়ে বেশি জানতে হবে টুলস সম্পর্কে।

এছাড়া কোনো ছবি ক্লিপিং পাথ করার জন্য এডোবি ফটোশপ ব্যবহার করা হয়। আপনি ফটো স্টুডিওতে যেয়ে যে ছবিগুলো এডিট করার জন্য দিয়ে আসনে তাঁরা মূলত ফটোশপ দিয়ে কাজ করে থাকে। আপনি যদি গ্রাফিক্সের কাজ করে টাকা আয় করতে চান তাহলে এই ফটোশপের কাজ অবশ্যই শিখতে হবে।

Adobe Illustrator

বিভিন্ন রকম ভেক্টর ফাইল তৈরি করার জন্য এডোবি ইলাস্ট্রেটর অন্যতম। আপনি যদি বিজনেস কার্ড, বইয়ের কাভার ও লোগো ডিজাইন করতে চান তাহলে এই সফটওয়্যারের কাজ শিখতে হবে। আপনার ডিজাইন করা ফাইল প্রিন্ট করার জন্য সবচেয়ে ভালো সফটওয়্যার হচ্ছে এডোবি ইলাস্ট্রেটর।

মূলত এই সফটওয়্যার দ্বারা বিভিন্ন ডিজাইনিং কাজগুলো করা হয়ে থাকে। ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটে ডিজাইনের কাজ করার জন্য আপনার এই সফটওয়্যারের ব্যবহার সম্পর্কে জানতে হবে। কোনো কার্টুনের মতো ছবি তৈরি করার জন্য এই সফটওয়্যার ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

এছাড়া এই সফটওয়্যার দিয়ে এনিমেশন ইমেজ তৈরি করা সম্ভব। যে ডিজাইনগুলো এই সফটওয়্যার করা হয় সেগুলো সব ফুল এইচডি হয়ে থাকে। এছাড়া এই সফটওয়্যার দিয়ে ভেক্টর ফাইলগুলো জুম করলে কখনো ফাটে না। সুতরাং ডিজাইনের অন্যতম সেরা সফটওয়্যার ইলাস্ট্রেটর সম্পর্কে আপনার দক্ষতা অর্জন করতে হবে।

কিভাবে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখে আয় করবেন (How to earn by learning graphics design)?

গ্রাফিক্সের কাজ শিখে টাকা আয় করার জন্য সবচেয়ে সহজ ও ভালো উপায় হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং। এখন বেশিরভাগ মানুষ গ্রাফিক্স ডিজাইনের উপর দক্ষতা অর্জন করে অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং করে আয় করছে।

গ্রাফিক্স-ডিজাইন-করে-আয়

ফ্রিল্যান্সিং একটি স্বাধীন বা মুক্ত পেশা যেটা মানুষ ঘরে বসেই করতে পারে। আপনি চাইলে খুব সহজে কোনো আইটি সেন্টার থেকে গ্রাফিক্সের কাজ শিখে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করে দিতে পারেন।

ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য অনলাইনে অনেক মার্কেটপ্লেস আছে যেগুলো সম্পূর্ণ ফ্রি যেমন- Upwork, Fiverr, Freelancer, Guru-ইত্যাদি। এইসব মার্কেটগুলো থেকে লক্ষ লক্ষ ফ্রিল্যান্সার কাজ করে টাকা ইনকাম করছে। আপনি যদি ফ্রিল্যান্সিং করতে চান তাহলে মার্কেটপ্লেসগুলোতে একটি একাউন্ট খুলতে হবে।

এছাড়া ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য আপনার বেসিক ইংরেজি জানতে হবে। কারণ ক্লায়েন্টের সাথে কথা বলার জন্য ইংরেজি ভাষা ব্যবহার করা হয়। সুতরাং এভাবে আপনি খুব সহজেই গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখে ফ্রিল্যান্সিং করে আয় করতে পারবেন।

আরো পড়ুন-

গ্রাফিক্সের কাজ শিখে অফলাইনেও আপনি আয় করতে পারবেন। বিভিন্ন আইটি কোম্পানি বা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গ্রাফিক্স ডিজাইনার খুঁজে থাকে। আপনি যদি বাংলাদেশের জব সাইটগুলোতে ভিজিট করেন তাহলে দেখতে পারবেন সেখানে অনেক সার্কুলার রয়েছে যেগুলো গ্রাফিক্স ডিজাইনের উপর। এছাড়া অফলাইনে গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের ভালো মানের বেতন দিয়ে থাকে কোম্পানিগুলো।

সর্বশেষ,

আজ আমি গ্রাফিক্স ডিজাইন কি ও কিভাবে এই কাজ শিখে টাকা আয় করবেন সেই সম্পর্কে আলোচনা করেছি। আপনি যদি আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ পড়ে থাকেন তাহলে গ্রাফিক্স ডিজাইন সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা নিতে পারবেন। আপনার যদি কোনো মন্তব্য থাকে তাহলে নিচে কমেন্ট করুন। ধন্যবাদ!

About SM Simol

আমি সিমুল, বিশ্ববিদ্যালয় পড়াশোনা করি ও এর পাশাপাশি আমি একজন আর্টিকেল রাইটার। বিভিন্ন বিষয় নিয়ে এই সাইটে ব্লগ পোস্ট পাবলিশ করি ও "BanglaAdvice.Com"-সাইটের (এডমিন) আমি। আমার সৃজনশীল মেধাশক্তিকে কাজ লাগিয়ে আর্টিকেল তৈরি করে থাকি এবং বিভিন্ন সাইট এর আলোচিত খবর গুলো প্রকাশ করে থাকি ।

Check Also

এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয় করার উপায়

এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয় করবেন কিভাবে? [ অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি ]

অনলাইনে মার্কেটিং করার জন্য ডিজিটাল মার্কেটিং এর অন্তর্ভুক্ত এফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate Marketing)-অনেক জনপ্রিয়। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *